আমাদের অনুভূতিগুলোর উৎস কি মস্তিষ্ক? নাকি, মন বা আত্মা?

‘যখন আমার মন খারাপ হয়’ শিরোনামে আমি আজকে একটা নিবন্ধ লিখেছি। সেখানে একজন পাঠক মন্তব্য করেছেন:

“স্যার, আজকে পড়লাম — if you are sad, blame your chemistry”

উত্তরে আমি নিম্নের প্রতিমন্তব্যটি লিখে পোস্ট করতে গিয়ে দেখলাম তিনি ইতোমধ্যে মন্তব্যটি মুছে দিয়েছেন।

আমার বিবেচনায়, Chemistry is the way to be joyful or sad, but not the cause.

হাত দিয়ে কিছু ধরার মতো করে আমাদের মস্তিষ্কের রসায়ন আমাদের মন-মানসিকতা নিয়ন্ত্রণ করে।

কিন্তু হাত দিয়ে আমরা কী ধরবো বা কীভাবে ধরবো সেটা যেমন আমাদের মস্তিষ্ক নির্ধারণ করে; তেমনি আমাদের মস্তিষ্ক আমাদেরকে কী নির্দেশ দিবে বা কীভাবে কী করবে তা আমাদের মন বা আত্মা কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত।

কেউ যদি মন বা আত্মার অস্তিত্বকে অস্বীকার করতে চায় তার জন্য সমস্যার ব্যাপার হলো, আমাদের মস্তিষ্ক কেন আমাদেরকে এ ধরনের নির্দেশ দেয়, অন্য ধরনের দেয় না, বা অন্য ধরনের নির্দেশ দেয়, এ ধরনের দেয় না, এর কোনো সদুত্তর তারা দিতে পারে না।

Surrounding factors বা পারিপার্শ্বিকতার যে কথা তারা বলে সেটা অসম্পূর্ণ।

“blame the chemistry” কথাটার মধ্যেই রয়ে গেছে কেমিস্ট্রির বাহিরে অন্য একটা কিছু যে আছে তার স্বীকৃতি। এই ‘একটা কিছু’ই কাউকে কোনো বিষয়ে ব্লেইম দেয়। ব্লেইম দেয়ার এই বিষয়টা সঠিক নাকি ভুল, সেটা ভিন্ন প্রশ্ন।

ব্লেইম দেয়া একটা মূল্যবোধসূচক কর্ম তথা normative phenomena of any subjectivity।

‘Brain’ অথবা ‘chemistry’ — এর কোনোটাই কিন্তু ফ্রী এজেন্ট বা সাবজেক্টিভ কিছু নয়।

তাহলে এই সাবজেক্টিভিটির উৎস কোথায়?

আমার কাছে এর উত্তর আছে। যা আমি উপরে বললাম। যারা এই ধরনের বস্তুবাদভিত্তিক আপাত চমকপ্রদ কথা বলে, তাদের কাছে এই প্রশ্নের কী উত্তর আছে? জানার ইচ্ছে।

লেখাটির ফেইসবুক লিংক

এ ধরনের আরো লেখা

ভুল করার ক্ষমতা না থাকলে আমরা হয়ে যেতাম অ-মানুষ; নিছক প্রাণী কিংবা নিরেট বস্তু

নাস্তিকতার চার খলিফা নামে খ্যাত একাডেমিক পারসনদের অন্যতম হচ্ছেন দার্শনিক ডেনিয়াল...

মানুষের ভাবনা চিন্তার পিছনে কে দায়ী?

কেউ আস্তিক, কেউ নাস্তিক, কেউ সংশয়বাদী, কেউ অজ্ঞেয়বাদী, বা কেউ নির্বিকারবাদী।...

মন্তব্য

    • মন ও আত্মা দুইটা ভিন্ন জিনিস। আত্মার অবস্থান সম্ভবত নিরাকার। যেটা নিরাকার সেটা কেমন প্রশ্নটা অবান্তর। এটা প্রমানিত নয় উপলব্ধির বিষয়।

      আত্মা বলাটা সমস্যাজনক কারণ আত্মা বললে মানুষ অনেককিছুই ইমাজিন করে মিন করে। যা আত্মাকে বুঝতে আরও কঠিন করে তুলে।

      আত্মা কি তা সরাসরি বলা যায় না। যায় না কারণ জানি না। কিন্তু এটার কিছু বৈশিষ্ট আমরা বুঝতে পারি যেমন

      ১) এটা নিরাকার।
      ২) এটার মরে না। (ইসলামি ভাষায় রুহ বলে)
      ৩) এটা আনচেইঞ্জিং
      ৪) আল্লাহ বলেছেন তার নিজে হতে রুহ ফুৎকার করে দিয়েছেন। তাই রুহ আল্লাহর জাত বলা যায়।
      ৫) এটা স্পেশাল।

      এটার অন্যনাম দিলে হয়ত আরও ব্যাটার বুঝা যায় যেমন Experiencer, The Observer, Consciousness.

      মানুষের মূল সেল্প হল এটাই।দুনিয়াতে মানুষের জার্নিই হল এই সেল্প পর্যন্ত পৌছানো।

  1. If you are sad then blame your mind not the soul.

    দেহ আত্মা এবং মন ইন্টারিলেটেড হলেও তিনোটা আলাদা জিনিস।

    আমাদের অনূভুতির উৎস মন। তবে এটা ঠিক যে আত্মা না থাকলে মনের অস্তিত্ব নেই। সেই হিসাবে আত্মাকে প্রথম Cause হিসাবে দেখানো যায়, কিন্তু সবচেয়ে বেশি দোষী হল মন। মন তার পার্টিকুলার চিন্তাভাবনার কারণে হোচড় খেয়ে স্যাড হয় তাতে আত্মার আর কি দোষ।

    ( স্যার আপনার সাইটের লেখাগুলি পড়ছি উপকৃত হচ্ছি। ভালো থাকবেন।)

আপনার মন্তব্য লিখুন

প্লিজ, আপনার মন্তব্য লিখুন!
প্লিজ, এখানে আপনার নাম লিখুন

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক
মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকhttps://mozammelhq.com
নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলসফি পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। থাকি চবি ক্যাম্পাসে। নিশিদিন এক অনাবিল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি। তাই, স্বপ্নের ফেরি করে বেড়াই। বর্তমানে বেঁচে থাকা এক ভবিষ্যতের নাগরিক।

সম্প্রতি জনপ্রিয়

‘অভিনয় প্রসঙ্গে ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গি’: আমার কথা

লেখাটা দীর্ঘ, তথ্যবহুল ও এপলজেটিক। এবং সে অর্থে অপূর্ণ।...

মেয়েদের চাকরি করা বা না করার সুবিধা-অসুবিধা ও কর্মজীবী নারীদের সংসার জীবনের ভালোমন্দ

“কর্মজীবী মহিলা যারা সংসারে আর্থিক স্বচ্ছলতা আনার জন্য চাকরি...

পাওয়া না পাওয়ার মাঝে

সম্পর্ক যত নিকটতর, সম্পর্কের দায় তত ব‍্যাপকতর, তিক্ততা তৈরীর...

মাওলানা আবু তাহের ভাই সম্পর্কে কিছু খণ্ড-স্মৃতিচারণ

ফারজানা মাহবুবা। মাওলানা আবু তাহের ভাইয়ের মেয়ে। তাহের ভাই...