আমার জীবনে আসা প্রথম নারী

ভালোবাসা জাগিয়ে তোলে ভালোবাসা।
ঘৃণা ছড়িয়ে দেয় ঘৃণা।
মানবিক অনুভূতিগুলো ভীষণ স্পর্শকাতর,
সংক্রমিত হয় মন থেকে মনে। তাই,
হয়ো না ঘৃণাজীবী। ভালোবাসার চেষ্টা করো।
সুখী হবে। হতে পারবে শুদ্ধ মানুষ।
দিতে পারবে সর্বোত্তম কিছু,
সমৃদ্ধ হবে জীবন, অনন্য অবদানে।

এসো উদযাপন করি জীবনের এই শেষ বেলাটুকু,
এসো উপভোগ করি অবশিষ্ট ক’টি ক্ষণ, ফুরিয়ে যাবার আগে।
এসো নির্মাণ করি এক সফল মানবজীবন।
এসো উদযাপন করি করি এই সুন্দর বসন্তকাল।
আরো একটা বসন্ত আমরা পাবো কিনা জানি না।
যে কোনো সময়ে জীবনের এই ট্রেন
থেমে যেতে পারে, শেষ হতে পারে সব পথ,
পৌঁছে যেতে পারে সময়ের তরী, জীবনের শেষ ঘাটে।

অবিশ্বাস নিয়ে, দেয়া-নেয়ার হিসেব করে,
কৌশলে জয়ী হওয়ার চেষ্টা করে, কী লাভ?
অমূল্য এ সময়টুকু নষ্ট করার মানে হয় না কোনো, আমাদের হাতে
যথেষ্ট সময় যেহেতু বাকি নেই আর।

ভালোবাসার চেয়ে দামি কিছু নাই।
সেদিন বলেছিলাম তোমাকে,
যে পারে ভালোবাসতে বিশেষ কাউকে,
অনায়াসে সে ভালোবাসতে পারে সবাইকে।
দিতে পারে অকাতরে অফুরান ভালোবাসা,
উপচে পড়া ভালোবাসা যার হৃদয় মনে।

যার নাই কোনো প্রিয়তমা
সে আদৌ হতে পারে না প্রেমিক পুরুষ,
কাউকেই সে ভালোবাসতে পারে না
হৃদয় দিয়ে, তেমন করে। সে হবে হিসেবি, ভোগবাদী।
তেমন পুরুষকে পছন্দ করবে না
কোন নারী, যার আছে প্রেমের ক্ষুধা,
ভালোবাসা যার কাছে
নিছক শরীরী কোনো ব্যাপার নয়।
সুন্দর মনের অধিকারী এমন কোনো নারী
কখনো পছন্দ করবে না
বৈষয়িক ভেদবুদ্ধিসম্পন্ন কোনো দৈনন্দিন পুরুষকে।

তোমাকে ভাবি না আর দশটা নারীর মতো।
তুমি আমার কাছের মানুষ।
চাইলেই তুমি হতে পারো প্রিয়তর, প্রেম দিয়ে।
প্রেমের মতো মারাত্মক ছোঁয়াচে ‌‘রোগ’
আসেনি এই পৃথিবীতে।
ভালোবাসার মতো মরণব্যাধি হতে পারে না কোনো।
ভালোবাসার কাছে পরাজিত হয় সব
বৈষয়িক হিসেব-নিকেশ।
ভালোবাসার মৃত্যু বাঁচিয়ে তোলে আমাদের।
ভালোবাসার পরশ মানুষকে অন্যরকম করে দেয়।
ভালোবাসার ছোঁয়ায় মানুষ বদলে যায়,
হয়ে ওঠতে পারে দেবতার চেয়েও খাঁটি,
ভালোবাসার সরোবরে ডুবে পরিণত হয় মানুষ
সত্যিকারের মানবিক মানুষে।

ভালোবাসো, চেষ্টা করো ভালোবাসার।
দেখবে পৃথিবীটা বদলে গেছে;
দেখবে, সবকিছু হয়ে উঠেছে মাধুর্যময়, সুন্দরতর।

দুনিয়াতে থেকে বেহেশতের সুখ পেতে চাও যদি, ভালোবাসো।
ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে তোলো সবার সাথে।
সমস্ত পৃথিবীর দিকে
মিত্রের দৃষ্টিতে চেয়ে দেখো,
দেখবে, সব হয়েছে তোমার আপনার।
অন্যায়কে ঘৃণা করো। করো প্রতিরোধ সাধ্যমতো।
কিন্তু ঘৃণা করো না কোনো অন্যায়কারীকে।
বিশেষ করে সে যদি হয় তোমারই ভালোবাসার মানুষ।

রক্ত মাংসে গড়া আমাদের এই জৈবিক সত্তা নিয়েই
আমরা মানুষ।
সব ভুল ত্রুটি অন্যায় নিয়েই আমাদের
এই সুখ দুঃখের জীবন, দিন রাত্রির পথচলা।
কেউ ভালো আছে, এটি তার কৃতিত্ব নয় মোটেও।
‌‘সুযোগের অভাবে প্রত্যেকেই আমরা সৎ,
সময়ে আমরা সকলেই শ্বাপদ’, বলেছিলাম বহুদিন আগে।
কথাটা তিক্ত, কিন্তু সত্য অতি। তুমি তা জানো।
শুনেছো আমার কাছ থেকে বহুবার
এই দীর্ঘ যুগল জীবনে।

প্রিয়জনের কাছে প্রিয়জনের কোনো অপরাধ থাকে না।
হতে পারে ভুল।
নির্ভুল জীবন মানুষের জীবন নয়,
হতে পারে দেবতার অথবা রোবটের। তাই,
ভুল-শুদ্ধ যত নিয়ম বিধি মেনে, পাওয়া না পাওয়ার
হিসেবের খাতা খুলে ব্যবসা করা যায়,
হয়তো সংসারও করা যায়।
কিন্তু হিসেবের খাতায় লেখা হয় না কখনো
ভালোবাসার গান,
হিসেবের খাতার কোনো পাতায়
আঁকা যায় না প্রেমের ছবি,
থাকে না তাতে প্রণয়ের আবেগ এতটুকু।

আমি প্রেমিক পুরুষ। পারলে আমাকে ভালোবাসো।
কোনো বৈষয়িক প্রাপ্তি দিয়ে আমাকে কিনে নিতে চেয়ো না।
তাহলে ঠকবে তুমি, পাবে অনেক কম।
যদি তুমি তা বোঝো।
প্রেমিক প্রকৃতির প্রবল পুরুষকে
ভালোবাসার উপযুক্ত দামে ক্রয় করে নিতে হয়,
জব্দ করতে হয় অকৃপণ প্রেমের কঠিন বন্ধনে,
একথা তুমি নিশ্চয়ই বোঝো,
এ বিশ্বাস রাখি মনে।

ভালো থাকো, আমার জীবনে আসা প্রথম নারী।

ফেইসবুক লিংক

Leave a Reply