সত্যতা হলো বাস্তবতা

ভুল তখনই ‘ভুল’ হয়, যখন তা হয় অনিচ্ছাকৃত। ইচ্ছে করে ‘ভুল’ লেখা ভুল নয়, স্টাইল বলা যেতে পারে। কখনো যদি কেউ ভুল না করতো, তাহলে সাহিত্যের ভাষাগত অগ্রগতি থেমে যেত। ভুল কাম্য, তবে সেটা স্বেচ্ছাকৃত হতে হবে। এক্ষেত্রে এটি হবে পরিবর্তন বা প্রগতি। ভাষার বিবর্তন তথাকথিত ভুলের উপর দাঁড়িয়ে। ভুল-নির্ভুলের মাপকাঠি হলো সত্য আর মিথ্যার প্রভেদ। সত্য আর মিথ্যা অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত।

তাহলে সত্য কী?

সত্য সংজ্ঞায়নের উপযুক্ত নয়। একে চেনা যায় দুটি বৈশিষ্ট্য দিয়ে–

১। যা সত্য, তা সহজাত হবে। কমনসেন্স একে এলাউ করবে। তা যা-ই হোক না কেন।

২। সত্য হবে সামগ্রিক। সমগ্রের সাথে সংগতিপূর্ণ না হলে কোনো ‘সত্য’ সত্যিকারভাবে সত্য হতে পারে না। খণ্ডিত ‘সত্য’ আদৌ সত্য নয়। বরং তা হলো সত্য-অনুরূপ মিথ্যা।

সত্যতা হলো বাস্তবতা।

পোস্টটির সামহোয়্যারইন লিংক

একটি মন্তব্য লিখুন

প্লিজ, আপনার মন্তব্য লিখুন!
প্লিজ, এখানে আপনার নাম লিখুন

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকhttps://mozammelhq.com
নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলসফি পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। থাকি চবি ক্যাম্পাসে। নিশিদিন এক অনাবিল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি। তাই, স্বপ্নের ফেরি করে বেড়াই।বর্তমানে বেঁচে থাকা এক ভবিষ্যতের নাগরিক।

সম্প্রতি জনপ্রিয়

আরো পড়ুন

অনস্তিত্বশীল হবার জন্য অস্তিত্বশীল হতে হয় আগে

পাঠকের প্রশ্ন: ‍“আসসালামু আলাইকুম, স্যার। কোনো কিছুর অনস্তিত্বকে প্রমাণ করা যায় কি?” আমার উত্তর: যায় বৈকি। অন্টোলজিক্যালি বা তাত্ত্বিকভাবে। পাঠকের প্রশ্ন: ‍“বুঝলাম না স্যার।” আমার উত্তর: স্পেসিফিকভাবে...

অন্টোলজিক্যাল মেথড বা তাত্ত্বিক পদ্ধতি দিয়ে কিভাবে আমরা কোনো সুনির্দিষ্ট প্রশ্নের একটা কনক্লুসিভ অ্যানসার পেতে পারি

প্রশ্ন: “আপনার এক ভিডিওতে শুনেছিলাম আপনার কোনো এক ছাত্র প্রশ্ন করেছিল, ‘আমের মধ্যে খেজুরের বিচি পাওয়া সম্ভব কি-না।’ আসলে আমি আপনার দেয়া জবাবে সন্তুষ্ট...

যুক্তির যৌক্তিকতা

পাঠকের প্রশ্ন: “যুক্তি ও প্রমাণ কি একই জিনিস? যুক্তি কেন দেওয়া হয়? যে কোনো কিছু প্রমাণ করার জন্যে কি যুক্তি আবশ্যক? যদি আবশ্যক হয়...