সব পর্যায়ে কেন দর্শন চর্চা জরুরি

সুখী হওয়ার জন্য দর্শন লাগবে, কিন্তু দর্শনের জ্ঞান থাকলেই কেউ সুখী হবে, এমন নয়। প্রত্যেকেরই জীবন সম্পর্কে সঠিক ধারণা, জ্ঞান বা দর্শন থাকা দরকার। দর্শন একটি ব্যাপকতর বিষয়। এর মধ্যে আছে ভুল দর্শন, সঠিক দর্শন। আছে ভালো দর্শন, খারাপ দর্শন। আছে সঠিক যুক্তি, ভুল যুক্তি। হতে পারে শক্তিশালী যুক্তি কিংবা দুর্বল যুক্তি। হতে পারে সামগ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি অথবা খণ্ডিত দৃষ্টিভঙ্গি।

একটি ডিসিপ্লিন হিসেবে এটি অর্থাৎ ফিলসফি আদর্শ ও মূল্যবোধ নিরপেক্ষ। যদিও আদর্শ মাত্রই, মূল্যবোধ মাত্রই কোনো না কোনো ধরনের ফিলসফি। ব্যক্তিকে বেছে নিতে হয় তার জন্য উপযুক্ত সঠিক পক্ষ, মত, পথ বা মূল্যবোধ ব্যবস্থা। সব বিকল্প সম্পর্কে দর্শন কথা বলে। কোনো বিষয়ে সম্ভাব্য উপায় বা পন্থা কী কী হতে পারে, সেটা ফিলসফি বলে দেয়।

এই দৃষ্টিতে, ফিলসফি হলো অপরিহার্য একটি বিষয়। সচেতনভাবে কিম্বা অজান্তে প্রতিটি মানুষ ফিলসফিকে ব্যবহার করে। মানুষের সব কাজের পিছনে থাকে কোনো না কোনো যুক্তি। উপরে যেটা বললাম, সেটা হতে পারে আপনার দৃষ্টিতে অগ্রহণযোগ্য যুক্তি কিংবা গ্রহণযোগ্য।

ডিস্পেন্সারিতে সব ওষুধগুলো থাকে। কিন্তু আমরা সেই ওষুধকে গ্রহণ করি যা আমাদের জন্য জরুরী। ফিলসফি হল তত্ত্বের ডিসপেন্সারি। আমাদের বিবেক, বুদ্ধি ও কাণ্ডজ্ঞান হচ্ছে চিকিৎসকের সমতুল্য।

কথার কথা, জগতের উৎপত্তি সংক্রান্ত বিষয়ে ফিলসফি থেকে কেউ আস্তিকতার পক্ষে যুক্তি খুঁজে পাবে, কেউ নাস্তিকতার পক্ষে যুক্তি খুঁজে পাবে, কেউ সংশয়বাদী-অজ্ঞেয়বাদী হবার যুক্তি খুঁজে পাবে। ফিলসফি স্বয়ং কাউকে কোনো একটি পক্ষকে বেছে নেওয়ার জন্য বলবে না।

ব্যক্তির মন মানসিকতা বা দৃষ্টিভঙ্গি, ইসলামী পরিভাষায় যেটাকে নিয়ত বলা হয়, ফিলসফির পরিভাষায় যেটাকে বলা হয় intentionality, সেটার ভিত্তিতে মানুষ তার পছন্দমতো দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করে।

এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাব্য পথগুলো কী হতে পারে, সেগুলোর কোনটার ভালোমন্দ বা সুবিধা-অসুবিধা কী, সেটা ফিলসফি বলে দেয়।

অতএব, কথাটাকে আবার দ্বিরুক্তি করে বললে এভাবে বলতে হয়, সুখী ও সফল হওয়ার জন্য দর্শন চর্চা অপরিহার্য। কিন্তু দর্শন চর্চা করলেই কেউ সুখী বা সফল হবে, এমনটি বলা যায় না। দর্শনকে কে কীভাবে কোন উদ্দেশ্যে ব্যবহার করছে সেটি, অর্থাৎ ব্যক্তির একান্ত যে বিশ্বদৃষ্টি বা প্যারাডাইম, তা দর্শন চর্চার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

গন্তব্যে যেতে হলে আপনাকে কোনো না কোনো পথে অগ্রসর হতে হবে। কিন্তু আপনি কোন পথে যাবেন সেটা আপনাকে কেউ নির্ধারণ করে দিবে না। আপনাকেই বেছে নিতে হবে আপনার জন্য উপযুক্ত পথ। পথের বর্ণনাগুলো জানা থাকলে আশা করা যায় যে আপনি সঠিক পদ্ধতি বেছে নিতে সক্ষম হবেন।

পথের সুবিধা অসুবিধা বা ভালো-মন্দ সম্পর্কে যদি আপনার জানা না থাকে তাহলে ভুল পথে পরিচালিত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায় অনেক বেশি। এই যে জীবনের নানামুখী পথ, সেগুলোর কোনটার গন্তব্য কোনদিকে, সেটি দেখিয়ে দেওয়ার ডিসিপ্লিন হলো ফিলসফি।

পথের বর্ণনা জানা থাকলেই কেউ সঠিক পথ বেছে নিতে পারবে এর কোনো নিশ্চয়তা নাই। সে সম্পর্কে উপরে বলেছি। কোনো যুক্তি দিয়ে, প্রমাণ দিয়ে, কেউ কারো দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে দিতে পারে না। এটি ব্যক্তির ভিতর থেকে গড়ে ওঠে। মানুষের বিশেষত্ব এবং স্বাধীনতা ঠিক এই জায়গাতে।

অন্যসব ডিসিপ্লিন চেষ্টা করে কোনো বিষয়ে একমত হওয়ার জন্য। ফিলসফি চেষ্টা করে অন্যরা যে বিষয়ে একমত হয়ে গিয়েছে, সবকিছু জেনে ফেলেছে বলে মনে করছে, সে বিষয়ে দ্বিমত করার মত কী বিষয় আছে, সে বিষয়ে জানার আরো কী কী বিষয় বাকি রয়ে গেছে, সেসব কিছুকে সামনে নিয়ে আসার।

অন্যকোনো ডিসিপ্লিন মানুষের কগনিটিভ ক্যাপাসিটি এবং ফ্রিডম অফ চয়েসকে এত বেশি মূল্যায়ন করে না, যা ফিলসফি করে থাকে। ফিলসফি মনে করে, অপশনগুলো ক্লিয়ার হলে কাণ্ডজ্ঞানসম্পন্ন যে কোনো মানুষ সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে। এমনকি সে যদি ভুল করে, সেটির সুযোগ বা অবকাশ তাকে দেওয়া উচিত। হতে পারে একসময় সে নিজেকে সংশোধন করে নিতে পারবে।

জীবন ও জগতের এমন মৌলিক বিষয় নিয়ে ফিলসফি কাজ করে যেখানে সাধারণ পর্যবেক্ষণ দিয়ে কোনো সমাধান পাওয়া সম্ভব হয় না। আবার ফিলসফির যুক্তিগুলো হয় বহুমাত্রিক ও বহুমুখী। যার কারণে শেষ পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি মানুষকেই সিদ্ধান্ত করতে হয় সে কোনদিকে যাবে। ফিলসফির এই বিশেষ বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে লোকেরা ভুল বুঝে। দিনরাত অবচেতনভাবে ফিলসফি চর্চা করে লোকেরা যুক্তি দিতে থাকে, ফিলসফির দরকার নেই। ব্যাপারটা যথেষ্ট ইন্টারেস্টিং। তাই না?

গণমানুষের মধ্যে, শিক্ষা কার্যক্রমের সর্বক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে যখন ফিলসফির চর্চা হবে, তখন এই ভুল বোঝাবুঝি অনেকখানি কমে যাবে।

[world logic day উপলক্ষে আয়োজিত সেমিনারে আমি দাবী করেছি, আমাদের জাতীয় শিক্ষা কার্যক্রমে সর্বস্তরে তথা প্রত্যেক ডিসিপ্লিন ও সাবজেক্টে অন্যতম অপরিহার্য বিষয় হিসেবে চালু করা হোক ফিলসফির বেসিক কোর্স। সে বিষয়ে একজন পাঠক (ইনবক্সে) মন্তব্য করেছেন, ‍“আমি সহমত না। দর্শনের জ্ঞান যদি জীবনের জন্য অপরিহার্য হতো তাহলে প্রত্যেক সুখী, সফল ব্যক্তি দার্শনিক হতো। জীবন থেকেই দর্শনের উৎপত্তি। আর জীবনে কোনো অযৌক্তিকতার স্থান নাই। যারা এটি উপলব্ধি করতে পারে না, মূলত তাদের জন্য ব্যাসিক কোর্স করা দরকার।”

তিনি একজন বিদগ্ধ ব্যক্তি এবং শিক্ষাবিদ। উনাকে আমি যে উত্তর দিয়েছি, এটি তার বর্ধিত ও পরিমার্জিত রূপ।]

মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য

Hosen Md Ishaq: পথ বেছে নেওয়ার ব্যাপারে কি তাহলে মানুষের মাঝে imprinted elements অর্থাৎ innate individual natures মানুষকে প্রভাবিত করে? এমনটা হলে মানুষ এক পরাধীন সত্তা। মাঝে মাঝে মনে হচ্ছে আমার বিশ্বাস একরকম কিন্তু চর্চা করছি আরেক। অর্থাৎ কোনো স্টাডিই আমার self-কে জানতে আমায় সাহায্য করছে না। অথচ নিজেকে জানা পৃথিবীর প্রথম ফিলোসফিক্যাল প্রশ্ন যার উত্তর আমাকে ফিলোসফি দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

মানুষের মাঝে যে এক প্রকাণ্ড ব্লাকহোল আছে তা ফিলোসফি, লজিক অথবা সায়েন্স কোন কিছু দিয়েই ব্যাখ্যা করা সম্ভব না। আমার প্রশ্ন হল, আমাদের সহজাত সত্তা কি ঈশ্বর প্রদত্ত? মানুষ কি যুক্তি ও বোধ দিয়ে সত্যিই কোনো এক সময় তার সহজাত প্রবৃত্তির ঊর্ধ্বে গিয়ে সকলের জন্য যা প্রযোজ্য কিংবা সকলের মতে যা সঠিক তা গ্রহণ করতে পারে? নিজের সহজাত প্রবৃত্তিকে চিহ্নিত করার বেসিক মেথড কী হতে পারে?

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: আমার দৃষ্টিতে, দেকার্তের যে বুদ্ধিবাদ, সেটা সঠিক। ডেকার্টের বুদ্ধিবাদ অনুসারে মানুষ যুক্তি ও বুদ্ধির সঠিক প্রয়োগ চর্চার মাধ্যমে সকলের জন্য যা ভালো সেটাকে বুঝতে পারে বা পারার কথা। ইমানুয়েল কান্টও এ ধরনের কথা বলেছেন।

এর মানে হলো, কোনো কোনো ফিলসফারের কোনো কোনো ফিলসফিক্যাল পজিশনকে কারো কাছে সঠিক মনে হবে। কারো কিছু ভুল মনে হবে। একাট্টা ‌‘ফিলসফিক্যাল পজিশন’ বলে কোনো কিছু নাই বা হতে পারে না।

লেখাটির ফেইসবুক লিংক

পূর্ববর্তীCelebrating World Logic Day
পরবর্তীতোমাকে পেতে চাই

একটি মন্তব্য লিখুন

প্লিজ, আপনার মন্তব্য লিখুন!
প্লিজ, এখানে আপনার নাম লিখুন

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকhttps://mozammelhq.com
নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলসফি পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। থাকি চবি ক্যাম্পাসে। নিশিদিন এক অনাবিল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি। তাই, স্বপ্নের ফেরি করে বেড়াই। বর্তমানে বেঁচে থাকা এক ভবিষ্যতের নাগরিক।

সম্প্রতি জনপ্রিয়

আরো পড়ুন

Celebrating World Logic Day

আন্তর্জাতিক দর্শন দিবসের পরে গত বছর হতে ১৪ জানুয়ারীকে ইউনেস্কো ঘোষণা করেছে world logic day। অন্য কোনো ডিসিপ্লিনের এমন কোনো দিবস নাই। একজন ফিলসফি পপুলাইজার...

দর্শনের অপরিহার্যতা

‌‘ফিলসফির দরকার নাই’, অথবা, ‌‘ফিলসফির মৃত্যু ঘটেছে’— এই কথাগুলো বা এ ধরনের যে কোনো কথার পিছনে কোনো না কোনো কারণ বা যুক্তি থাকবে। হোক...

সহজ ভাষায় ফিলোসফি লেখা কিংবা বলতে পারা

যারা আমাকে সহজ করে বলা ও লেখার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। আমার মনে হয়, আমি সহজ করে বলতে বা লিখতে পারি...