প্রাণীদের মধ্যে যৌথ পরিবার প্রথা ও প্যারেন্টিং কেমিস্ট্রি

এরা ৪ জন মোরগটির অধীনস্ত শান্তিপ্রিয় ইন-লজ। এরা ছাড়াও মোরগটির আছে আরো দু’জন ‘স্ত্রী’। তারা আলাদা গ্রুপ। অনেকেই জানেন না, অধীনস্ত মুরগীরা কোনদিকে চরতে যাবে, কী খাবে, এমনকি কে কোথায় ডিম পাড়বে সেটাও ওদের ‘বস’ মোরগটি ঠিক করে দেয়।

যাহোক, এই চারটা মুরগী পার্শ্ববর্তী ঘেরাটির এক কোণায় পাশাপাশি ডিম পাড়তো। অধিকাংশ ডিম আমরা নিয়ে ফেলেছি। কয়েকটি থেকে যাওয়ায় এরা পালা করে যৌথভাবে ডিমে তা দিয়েছে। দুটি বাচ্চা ফুটেছিল। একটা বিড়ালে খেয়েছে। বাকিটা চার মায়ের একমাত্র সন্তান হিসেবে মহাআনন্দে লালিত-পালিত হচ্ছে।

মাতৃত্ব হলো স্ত্রী প্রজাতির অন্যতম সহজাত বৈশিষ্ট্য। এই ভিডিও সেটার প্রমাণ।

শেষ অঙ্কে দেখা যাবে একটা ‘লম্পট’ পুরুষ হাঁসের বিরুদ্ধে মাতৃত্বের শক্তিতে উজ্জীবিত মুরগীদের গণপ্রতিরোধের দৃশ্য।

সব সময় কঠিন সব তাত্ত্বিক বিষয়ে কথা বলি। তাই ভাবলাম, এই ফানি ভিডিওটি শেয়ার করি। দীর্ঘদিন থেকে নানা ধরনের পেট মেইনটেইন করার কারণে প্রাণী জগত নিয়ে আমার বিচিত্র সব অভিজ্ঞতা আছে। ইচ্ছা আছে সেগুলো মাঝে মাঝে শেয়ার করার।

লেখাটির ফেইসবুক লিংক

Leave a Reply