অপারগতার এই সময়ে

কারো আছে স্বামী, কারো স্ত্রী,

আছে ভরপুর সংসার।

নাই শুধু দাম্পত্য জীবন।

এমন কত উদাহরণ আশেপাশে আমাদের।

স্বামী স্ত্রী সুখী তারা শুধু সামাজিকতায়।

রাত্রি কাটে তাদের এক বিছানায়

যেন তারা ভাই বোন;

এভাবে মাস কেটে যায়, বছর ঘুরে আসে…!

কদাচিৎ কিছু হয়। নিয়মিত সম্পর্কে

এক পক্ষের প্রবল অনীহা।

রোমান্টিক সম্পর্ক তাদের

দ্রুত ফুরিয়ে আসে,

হয়ে উঠে তারা সংসারী পুরোদমে

যেন তারা প্রাক্তন প্রেমিক যুগল।

একান্ত প্রয়োজনে

কেউ তৃপ্ত নিজ আয়োজনে।

কারো ফুরায় সহসাই। অপরপক্ষ

পড়ে রয় অসহায়।

যে বেশি চায় সে যেন দোষী। সমাজের চোখে,

অপরাগতা যেন অধিকতর নৈতিক!

চোখের যে জল ঝরে পড়ে, তা দেখা যায়।

হৃদয়ে যে অশ্রু ঝরে অব্যক্ত মানবিক যন্ত্রণায়,

কে রাখে খবর তার?

বঞ্চিত মানুষটার কথা কে জানে?

ক্রেতা আছে, বিক্রেতা আছে, নাই ব্যবসা-বাণিজ্য;

এমন এক অদ্ভুত সমাজে আজ

আমাদের পঙ্কিল বসবাস।

মানুষে মানুষে ভরপুর এই পৃথিবীতে

কত মানুষ নিঃসঙ্গ, নিরুপায়;

কে রাখে খবর তার?

অবসর আসে যন্ত্রণা হয়ে তাদের জীবনে।

ব্যস্ততা তাদের কাছে ভুলে থাকার উপায়।

ভুল মানুষের সাথে জীবন কাটানোর চেয়ে

বড় কোনো দুঃখ নাই মানুষের জীবনে।

চাই, অবসান হোক সব বঞ্চনার, সব অবদমনের।

সব উশৃংখলতা হোক ব্যক্ত।

সকল দ্বিচারিতার হোক অবসান।

মানুষের জীবন হোক প্রকৃতির মতো

অনাবিল, সুন্দর, অবাধ, আনন্দময়।

আছি সেদিনের অপেক্ষায়।

Leave a Reply