কে কী বলে বা করে তারচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো কেন তা বলে অথবা তেমনটি করে

আমাদেরে এক ছাত্রী। থার্ড ইয়ারের সম্ভবত। খেয়াল করেছি এক ছেলে বন্ধু বসতো ওর সাথে সব সময়ে, মেয়েদের পাশে। ‘মেয়েদের পাশে’ বলতে ক্লাসের অন্তত একটা রো-তে মেয়েরাই বসে সাধারণত।

একদিন ছেলেটাকে লক্ষ করে বললাম, ‘অনেক ছেলেরা এটা জানেই না, মেয়েদের সাধে ঘেঁষাঘেঁষি করা ছেলেদেরকে মেয়েরা খুব একটা পছন্দ করে না।’ এরপর হতে দেখলাম তারা ক্লাসে আলাদা বসে।

ইনডাইরেক্টলি কিছুটা হিট করে কথা বলার পর হতে দেখলাম মেয়েটা ক্লাসে বেশ মনোযোগি হয়ে উঠেছে।

একাডেমিক ইন্টারেকশান হতে বুঝলাম সে যথেষ্ট বুদ্ধিমতি। একদিন প্রসঙ্গক্রমে বললো, ‘স্যার, বাসায়ও কি আপনি ম্যামকে এ ধরনের এগ্রেসিভ কথাবার্তা বলেন?’ আমি বললাম, ‘হ্যাঁ, সারাক্ষণ।’ তখন ও বললো, ‘ম্যাম সহ্য করে?’

তখন ওকে আমি যা বলেছি সেটা বলার জন্য এত কথা।

আমি বললাম, মানুষ কখনো কখনো কিছু কিছু অসহ্য সুন্দরকে নিয়ে বিপদে থাকে। আমি হলাম তোমার ম্যামসহ কারো কারো তেমনই অসহ্য সুন্দর।

আজকে সকালেও আমার সাথে মিতুল ম্যামের এরকম কিছু অভিজ্ঞতা হলো। গতকালকেও।

গতকাল সকালে নাস্তা করতে করতে আমি উনাকে বললাম, নগরে বসবাসকারী যেসব মেয়েরা ধর্মকর্ম করে, যেমন পর্দা করে তারা মনে করে, অন্য মানুষ যারা ধর্মকর্ম করে না, যেমন পর্দা করে না, সেইটা নিয়ে পর্দা করা মেয়েদের কোনো আপত্তি থাকে না। তারা মনে করে, এসব ওদের ব্যাপার। বেপর্দা নারীদের সাথে তারা স্বাচ্ছন্দ্যে ঘুরে বেড়ায়। তাদের উগ্র চলাফেরার ব্যাপারে তারা অসুবিধা বোধ করে না।

ম্যামকে জিজ্ঞাসা করলাম, আমার এই অবভারবেশন কি সঠিক?

তিনি আমার সাথে একমত হলেন। তখন আমি উনাকে বললাম, তাহলে আমরা বুঝতে পারি, ব্যতিক্রম বাদে শহুরে শিক্ষিত মেয়েরা পর্দা করে মূলত ব্যক্তিস্বাধীনতার কনসেপ্টের ভিত্তিতে। ‘আমার ভাল লাগছে আমি করছি, ওর ভাল লাগছে না, ও করছে না। এতে তোমার বা কারো কিছু বলার নাই’ – এই হলো তাদের মেন্টালিটি।

যতক্ষণ না কেউ তোমার প্রত্যক্ষ ক্ষতি করছে, ততক্ষণ তাকে কিছু বলার অধিকার তোমার নাই। এই ‘নো হার্ম প্রিন্সিপাল’ বলেন, লিবারেল ব্যক্তিস্বাধীনতার ধারনা বলেন, এগুলো সব পাশ্চাত্য মূল্যবোধের ব্যাপার।

ব্যক্তিস্বাধীনতার পাশ্চাত্য মূল্যবোধের ভিত্তিতে ধর্মকর্ম করা আর খোদার হুকুম হিসেবে খালেসভাবে তাঁর এবাদত হিসেবে কোনোকিছু করা, দুইটা সম্পূর্ণ ভিন্ন জিনিস। প্রথমটা সোশ্যাল কালচারাল প্র্যাকটিস। দ্বিতীয়টা রিলিজিয়াস স্পিরিচুয়াল প্র্যাকটিস।

আল্লাহর নবী মুহাম্মদ (স.) বলেছেন, অন্যায় কাজ দেখলে তোমরা হাতে বাধা দাও। না পারলে মুখে প্রতিবাদ করো। তাও না পারলে অন্তরে ঘৃণা করো। এটি বুনিয়াদি হাদিস।

কাউকে ক্ষতিগ্রস্ত হতে দেখে, ভুল পথে যেতে দেখে যদি তোমার মন না কাঁদে, খারাপ না লাগে, তাহলে বুঝতে হবে, তুমি বা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি নৈতিক আপেক্ষিকতাবাদে বিশ্বাসী। তিনি ফিলসফিকেলি পোষ্ট মডার্নিস্ট। ইসলাম বা অন্য কোনো ধর্ম বা আদর্শকে তিনি নিছক সামাজিক সংস্কৃতি হিসেবে গ্রহণ করেছেন।

বাস্তবতা হলো, আদর্শমাত্রই আগ্রাসী। এমনকি লিবারেল ‘ধর্ম’ও ফান্ডামেন্টালি এগ্রেসিভ। লিবারালিজম জোর করে তার মতো করে সবাইকে লিবাারেল বানাতে চায়। লিবারালিজম লিবারালিজম ছাড়া সব ব্যাপারে লিবারাল।

ভিন্নমতের অনুসারীদের সাথে কীভাবে চলতে হবে সেইটা নিয়ে ‘সিএসসিএস’এর সাইটে আমি অনেক লেখা প্রকাশ করেছি। এমনকি ‘চিন্তার স্বাধীনতা ও ইসলাম’ নামে একটা সংকলনগ্রন্থও প্রকাশ করেছি। কথাটা এ জন্য বললাম, যাতে করে কেউ আমাকে ভুল না বুঝেন।

ভিন্নমত ও পথকে আপনি কীভাবে ডিল করবেন তার একটা মেথডলজি আছে। আমি এখানে মন-মানসিকতার কথা বলছি।

আজকে সকালেও মিতুল ম্যামের সাথে অনেক আলাপ হলো। প্রসঙ্গক্রমে উনাকে জিজ্ঞাসা করলাম, মেয়েদেরকে যদি অপশন দেয়া হয়,

(১) ব্যক্তিগত ও পারিবারিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকা কিন্তু অনেক টাকাপয়সা আয়-উপার্জনের নিশ্চয়তা, অথবা

(২) ব্যক্তিগত ও পারিবারিকভাবে ভাল থাকার নিশ্চয়তা কিন্তু ক্যারিয়ার গঠনের সুযোগ না থাকা,

কত পার্সেন্ট মেয়ে কোন অপশন বেছে নিবে?

ম্যামের ধারনা, ৭০% মেয়ে প্রথম অপশনটা বেছে নিবে। ৩০% মেয়ে দ্বিতীয় অপশন বেছে নিবে।

এক পর্যায়ে উনাকে লটারির উদাহরণ দিয়ে বললাম, কিছু সাকসেস স্টোরিকে বিক্রী করে মেয়েদের মাথা খারাপ করে দেয়া হচ্ছে। যারা পার হতে পারছে না, সংসার করে সুখি হওয়ার এই দৌড়ে যারা ঝরে পড়ছে, তাদের কথা কেউ শুনছে না। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পুরো কাঠামোতে কোথাও নাই ফেমেলি লাইফের কোনো শিক্ষা বা প্রেরণা। সমাজ ও বিদ্যায়তনের পুরো আবহকে গড়ে তোলা হয়েছে ইনডিভিজুয়াল লিবারালিজমকে কেন্দ্র করে।

বিয়ে, সংসার, বাচ্চা, পরিবার এসব পানিশমেন্ট ট্রান্সফারের মতো ব্যাপার। এই যদি হয় সামাজিক বাস্তবতা তাহলে পরিবারগুলো টিকবে কিভাবে? আমগাছে তো আর কাঁঠাল ফল ধরবে না।

মতাদর্শগত এই কনফ্লিক্টের যুগে, আপনার বেসিক প্যারাডাইম কী, তা নিয়ে অন্তত নিজের কাছে পরিষ্কার থাকুন। নিজেকে নিজে প্রশ্ন করেন, আমি এই এই ব্যাপারে আসলে কী মনে করি? এই ধরনের মনে করাটা কী সিগনিফাই করে?

এ ধরনের সেলফ-এসেসমেন্ট করা তো দূরের কথা, এই স্ট্যাটাস কতটুকু পড়েই নারীপাঠকদের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ আমার ওপর ক্ষেপে উঠবেন। নারীরা বঞ্চিত, এই মনোভাবের কথা, লেখা তারা যতটা পছন্দ করেন, নারীরা সহজে পাশ্চাত্য ধ্যানধারনার কাছে বিক্রী হয়ে যায়, এই সেন্সের কথা ও লেখা তারা ততটা অপছন্দ করেন।

প্যারাডক্সিকেলি, তারা ইনজেনারেল ধর্মকর্মও বেশি করেন। প্যরাডিগমেটিক সেন্সে ভালনারাবিলিটি এর গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা। বিপন্নবোধকারী ব্যক্তি সম্ভাব্য সব উপায়ে নিজেকে নিরাপদে রাখার চেষ্টা করে। এটি স্বাভাবিক।

আমার এ ধরনের কথাবার্তার কারণে আমার গ্রুপ হতে ইতোমধ্যে বেশ ক’জন হাই -প্রোফাইল নারী বের হয়ে গেছেন অথবা নিষ্ক্রিয় হয়ে গেছেন। এটি আমার কাছে খুব একটা অপ্রত্যাশিত নয়।

ইসলামিক ফেমিনিজম এখন অলআউট এটাকের মধ্যে পড়েছে। অদূর ভবিষ্যতে এর সমূহ পরাজয় অনিবার্য। প্রবল ঘুর্ণিঝড় যেমন ঝড়ো হাওয়ায় পর্যবসিত হয়ে আস্তে আস্তে স্তিমিত হয়ে আসে, ফেমিনিজম বিশেষ করে ইসলামিক ফেমিনিজমের আয়ুষ্কালও তেমনি ফুরিয়ে এসছে প্রায়।

এক সময়ে শিক্ষিত পর্দানশীল নারী বলতে মূলত ইসলামী ছাত্রী সংস্থার মেয়েদেরকে বোঝাতো। এখন সময় বদলেছে। তেমনি করে, এখন শিক্ষিত নারীমাত্রই কমবেশি নারীবাদী। খুব শিগগির এই অবস্থার পরিবর্তন হবে।

এখনকার নারীবাদীরা স্বীকার করে না যে তারা নারীবাদী। লক্ষণ দেখে বুঝতে হয়। আর, ইসলামিক ফেমিনিস্টরা হলেন ‘আমলী ফেমিনিস্ট’। অদূর ভবিষ্যতে মেয়েদের মধ্য থেকেই এরা প্রবল মোকাবেলার সম্মুখীন হবে।

মেয়েদের মধ্যে কাজ বৃদ্ধি পাওয়ার মাধ্যমে এমনটা ঘটবে, আমি তা মনে করি না। বরং ছেলেদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। পরিবর্তনটা হবে ছেলেদের মধ্যে।

ওয়েস্টক্সিফিকেশনের ব্যাপারে ছেলেরা যতটা সজাগ, মেয়েরা ততটা নয়। বলাই বাহুল্য, ছেলেরা যেদিকে থাকে মেয়েরা আলটিমেইটলি সেদিকেই যায়।

মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য

মোহাম্মদ সজল: ফেমিনিজম আরো ড্রাইড আপ হয়ে আসবে বিশ্বরাজনীতির ফেরে পড়ে। ইউরেশিয়ানিজম জোরেশোরে আগাচ্ছে, দুনিয়া হতে যাচ্ছে মাল্টিপোলার যেখানে মাল্টিপোলের বেশিরভাগ পোলেই ফেমিনিজম নিন্দিত।

যুদ্ধের তাড়না পশ্চিমে সোশ্যালিস্ট ক্যাপিটালিজমকে তাড়িয়ে নিয়ে আসবে এগ্রেসিভ ক্যাপিটালিজমকে, ফলস্বরুপ সেখানেও ভেঙ্গে পড়বে ফেমিনিজম।

বাংলাদেশ একপ্রকার পশ্চিমা ফেমিনিজমের ভেতর দিয়ে আগামী দশ বছর যাবে, কিন্তু এই সময়ে পুরুষরাও ক্রমেই হবে আরো এন্টাই ফেমিনিস্ট। ২০৩৫-২০৪০ সালের ভেতরে বাংলাদেশে ফেমিনিজম স্তিমিত হয়ে আসবে ১৯৭০ পূর্ব অবস্থায়। ২০১৫-২০২০ হচ্ছে ফেমিনিজমের স্যাচুরেশান পয়েন্ট বাংলাদেশে। এরপর এর প্রভাব শুধুই কমছে।

আব্দুল্লাহিল কাফী: গত দুই দশকে বাংলাদেশে উইমেন এম্পাওয়ারমেন্টের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। সাউথ এশিয়াতে অপ্রতিদ্বন্দী চ্যাম্পিয়ন আর বিশ্বে ৫০ এর ভিতরে। ভবিষ্যতে বাংলাদেশের নারীদের এম্পাওয়ারমেন্ট আরোও বাড়বে বৈ কমবে না। এটাকেও আমরা অনেকে নারীবাদী বলে অ্যাখ্যা প্রদান করে থাকি। তবে বাংলাদেশে সত্যকারের নারীবাদী বলে যদি কেই থেকে থাকে তিনি হলেন তিন দশক আগের তসলিমা নাসরিন। ধর্মবিরোধী হিসেবে তাকে দেশত্যাগ করতে হয়েছে। তার কাছাকাছিও কোন নারীবাদী আছে বলে মনে হয় না। এখন নারীবাদী ট্যাগ একধরণের পাবলিক শেইমিং এর জন্য ব্যবহৃত হয়। কারণ যাদের উদ্দেশ্যে বলা হচ্ছে তারাও শেইম হচ্ছেন এবং অসস্থিতে পতিত হচ্ছেন। পাবলিক শেইমিং আমার-আপনার সবারই জন্য অস্বস্তিকর। বাংলাদেশে মূলতো নারীবাদী থাকবে না তবে এর কারণটা ভিন্ন। যে পরিমান উইমেন এম্পাওয়ারমেন্ট হয়েছে এই দেশে এখন নারীবাদের প্রয়োজনীয়তা ম্লান হয়ে পরেছে। আর সেটা আমরা নিজেরাই করেছি আমাদের কন্যাদেরকে উচ্চশিক্ষিত করে ইন্ডিপেন্ডেন্ট করার মাধ্যমে। স্বল্প শিক্ষিত ও ডিপেন্ডেন্ট কারো পক্ষে সোস্যাল চেন্জ আনার কথা চিন্তা করাটাও অসম্ভব। অদূর ভবিষ্যতে বঙ্গ পুরুষের স্বার্থ রক্ষার্থে পুরুষবাদের উত্থান হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা দেখছি। বঙ্গ পুরুষ তার অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে এখন অধিক বঞ্চনার শিকার হচ্ছে বলে ধারণা করছি।

এম জামান: কোন চিন্তা আগ্রাসী না হলে, সে চিন্তা আগ্রাসনের শিকার হবেই। কিন্তু লিবারেলিজমে ডুবে থাকা সাধারণ শিক্ষিতরা এই ব্যাপারটা অস্বীকার করে, বিশেষত মুসলিমদের ক্ষেত্রে। তারা ধরেই নেয়, মুসলিম বলতেই- নরম সুরে কথা বলা, কাউকে কথা দিয়েও আঘাত না করা, রাজনীতির প্রশ্নে কোন অবস্থানে না থাকা- এমন একজন ব্যক্তি হবে।

চিন্তাগত দিক থেকে আগ্রাসী কথাবার্তা বললে কিছু ট্যাগ তো রেডি থাকেই।

আপনার আর মিতুল ম্যামের এরকম আলোচনা আমার বাসাতেও হরহামেশাই হয় আমার বাসায়। কিন্তু প্রবল বিরোধীতা, অসহনশীলতা আর আমার একাডেমিক ঘাটতি থাকার কারণে খুব বেশি আগাতে পারিনা।

আপনার আন্দোলন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ুক স্যার।

মুসাদ্দেক আহমেদ: আপনার কনক্লুশন এর সাথে আমি একমত।

ছেলেরাই দাবী করতে শুরু করবে এবং করছেও যে তাদের স্ত্রী হিসেবে একজন ঘরোয়া মেয়ে প্রয়োজন। যে মন দিয়ে ঘর সামলাবে, সংসার করবে। আর আমার ধারণা সমাজে এরকম মেয়েদের ও অভাব নেই যারা বাইরে না বেরিয়ে বাড়ির কাজ, বাচ্চা মানুষ, সংসার এসবই বেশি আগ্রহী।

সমস্যা হলো পশ্চিমা প্রপাগান্ডা মেশিনের দৌলতে আজ নারী ক্ষমতায়নের ছদ্মবেশ প্রাচ্চের মেয়েদের কাছে মুক্তির দ্বীপ হিসেবে প্রচারিত হচ্ছে। কিছু মহিলা, যাদের কাণ্ডজ্ঞান যথেষ্ট প্রশ্নযুক্ত, তারা টিভি তে, ইউটিউবে, খবরের কাগজে নারী স্বাধীনতার জোর প্রচার করছে। আর বৃহত্তর সমাজ চুপটি করে বসে বসে ভাবছে তার কি করা উচিত।

আমার হিসেবে এই সব কিছুই সূত্রপাত আমাদের ট্র্যাডিশনাল প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার অবমূল্যায়ন(ডেস্ট্রাকশন) এর মাধ্যমে হয়েছে। আইএমএফ, ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের জালে দেশীয় ও ধর্মীয় মূল্যবোধ যুক্ত শিক্ষাব্যবস্থাকে অসার দেখানো হয়েছে, পাশাপাশি প্রচার করা হয়েছে পশ্চিমা মেটিরিয়াল শিক্ষা ব্যাবস্থার মাহাত্ম। ফলে তাদের প্রপাগান্ডার তুমুল অগ্রগতি হয়েছে ইউরোপীয় শিক্ষিত দেশীয় জনতার মাধ্যমে। আর আমি বিশ্বাস করি এসবই মাত্র ৫ বছরের মধ্যেই রিভার্স করে দেওয়া সম্ভব।

উম্মে সালমা: এই লেখাটি পড়ে মনে হচ্ছে, ভাইয়ের অবসর নেয়ার সময় হয়েছে। এত অসংলগ্ন অহংকারী পুরুষবাদী লেখা উনার, এটা বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। মিতুল আপার জন্য এক সাগর সমবেদনা। ভাইয়া উনাকে এভাবে ভয়েসলেস করে উপস্থাপন করলেন। উনি চুপ! তো এটা কি “স্বামীর প্রতি ইসলামিক আনুগত্য” নাকি?

সেকেন্ড ইয়ারে থাকতে উনার বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে উনি ছাত্র ছাত্রীদের যা ইচ্ছা তা বলার ক্ষমতা আছে বলে মনে করেন, সেখানে পর্দা করার জন্য এক স্যারের হাতে চরমভাবে এটাকট হয়েছিলাম। এখন উনি এখন পর্দা না করার জন্য/ছেলেদের সাথে বসার জন্য ছাত্রীদের উপর চড়ছেন। বাহ, বাহ, কি সুন্দর মোরালিটি ইসলামপন্থীদের! আবার তার পক্ষে সাফাই গাইছেন, ছাত্রীটি নাকি ওনার কথা শুনে পড়াশোনায় মনোযোগী হয়েছে। হাসবো না কাঁদবো! বুঝতে পারছিলাম না।

অবসরে যান, বিশ্রাম নিন, মাথা শেষ বলে মনে হচ্ছে। এপোক্লিপটিক ভয়েস শুনছি, ইসলামী ফেমিনিজমে লুকানো ধার্মিক নারীরা বিলুপ্ত হয়ে যাবে, পুরুষ রা জেগে উঠো আর তাদের ধ্বজাধারীরা। হাহা হা।

আমাদের দেশে একটি প্রবাদ আছে, দুধে একফোঁটা চনা পড়লে ওটা আর খাওয়া যায়না।

নিজের কাজ অখাদ্য যোগ্য হবার আগে বিশ্রাম নিন….

লেখাটির ফেইসবুক লিংক

এ ধরনের আরো লেখা

একজন ইসলামপন্থী হয়েও কেন এবং কোন অর্থে আমি সেক্যুলারিজমকে সমর্থন করি

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, “আল্লাহর কাছে একমাত্র গ্রহণযোগ্য দ্বীন হলো...

সমকালীন ইসলামপন্থীদের বুদ্ধিবৃত্তিক সংকট

আমাদের ধর্মীয় সেক্টরে কিছু যিকির বা রেটরিককে সুপ্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। কিছু...

মন্তব্য

আপনার মন্তব্য লিখুন

প্লিজ, আপনার মন্তব্য লিখুন!
প্লিজ, এখানে আপনার নাম লিখুন

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক
মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকhttps://mozammelhq.com
নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলসফি পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। থাকি চবি ক্যাম্পাসে। নিশিদিন এক অনাবিল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি। তাই, স্বপ্নের ফেরি করে বেড়াই। বর্তমানে বেঁচে থাকা এক ভবিষ্যতের নাগরিক।

সম্প্রতি জনপ্রিয়

মেয়েদের চাকরি করা বা না করার সুবিধা-অসুবিধা ও কর্মজীবী নারীদের সংসার জীবনের ভালোমন্দ

“কর্মজীবী মহিলা যারা সংসারে আর্থিক স্বচ্ছলতা আনার জন্য চাকরি...

ধর্ম শিক্ষা দেয়া কারো পেশা হতে পারে কিনা

হ্যাঁ পারে। সেই শিক্ষা যদি নৈতিক দিক-নির্দেশনা বা আদর্শ...

ইসলামে ‘শ্বশুরবাড়ি’ ও ‘যৌথ পরিবার’ বিতর্ক প্রসংগে কিছু মন্তব্য

(১) সম্পত্তি বণ্টন ব্যবস্থা হতে শিক্ষণীয় বিভিন্ন পরিস্থিতিতে মানিয়ে চলার...

ইমামের পেছনে সূরা ফাতিহা পাঠ প্রসঙ্গে

নামাজে মুক্তাদীগণ সূরা ফাতিহা পাঠ করবেন কিনা, এ বিষয়ে...