আন্তরিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে শুধুমাত্র ভালো মানুষদের সাথে

যারা বুঝতেছে না কিন্তু জানতে চায়, যারা সত্যসন্ধানী এবং সংবেদনশীল মননের অধিকারী তাদের সাথেই এনগেইজ হও। যারা উদ্ধত প্রকৃতির অবুঝ লোক, যারা বোঝে না, অথচ তারা যে বোঝে না এটাও বুঝতে পারে না, এমন বেকুব লোকদেরকে কখনো বুঝাতে যেয়ো না। তাদের সাথে এনগেইজ হওয়ারই দরকার নাই। নিম্নমানের লোকদের সাথে তুমি যদি এনগেইজ হও তাহলে এক পর্যায়ে তোমার নিজেরই নৈতিক মানের অবনতি ঘটবে।

তাই, এ ধরনের পরিস্থিতিতে সৎবুদ্ধি ও কাণ্ডজ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তি হিসেবে তোমার করণীয় হলো, ক্ষমতা থাকলে দুষ্ট প্রকৃতির অবুঝ লোকদেরকে থামিয়ে দেয়া বা কোণঠাসা করে রাখা। না পারলে, তাদেরকে সর্বতোভাবে এড়িয়ে চলা। এমনকি তারা যদি তোমার কাছের মানুষও হয়ে থাকে।

এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, “হে মুমিনগণ, তোমাদের স্ত্রী ও সন্তানদের মধ্যে কেউ কেউ তোমাদের শত্রু। তাই তাদের সম্পর্কে সতর্ক থাকো। অবশ্য যদি তোমরা তাদেরকে মাফ করে দাও, তাদের দোষত্রুটি উপেক্ষা করো তবে জেনে রাখ, আল্লাহ ক্ষমাশীল ও দয়ালু।” (সূরা তাগাবুন: ৬৪:১৪)

মানুষের মন হচ্ছে জীবন্ত হাড়ের মতো। জীবন্ত হাড় যখন একটার সাথে একটা সংস্পর্শে আসে তখন তারা জোড়া লেগে যায়। তাই বাজে লোকদের সাথে কখনো আন্তরিক হতে নাই। যে যার সাথে উঠাবসা করে সে তার মতোই হয়ে যায়। নৈতিক ও মানবিক গুণাবলির দিক থেকে যারা নিম্নমানের তাদের সাথে দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে। নিজের নৈতিক মান ও আত্মমর্যাদা বজায় রাখার জন্য এটি জরুরি।

সাথে এই কথাটাও মনে রাখতে হবে– কেউ খারাপ লোক হওয়ার কারণে, কিংবা তোমার অধিকার আদায় না করার কারণে, কিংবা তোমার ওপরে জুলুম করার কারণে তোমার কাছ থেকে তার প্রাপ্য অধিকারের দাবি নাকচ হয়ে যায় না। কর্তব্যবোধ এবং ব্যক্তিগত পছন্দ, এই দুটোকে আলাদাভাবে বিবেচনা করতে হবে।

ফেসবুক থেকে নির্বাচিত মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: আমার বিরুদ্ধে আমার নিজেরসহ অনেকের এই অভিযোগ, আমি সব সময় ভারি ভারি তাত্ত্বিক বিষয়ে লম্বা-চওড়া লেখা লেখি। এই অভিযোগ খণ্ডনের জন্য মাঝেমধ্যে এই ধরনের ছোট ছোট কিন্তু জীবনঘনিষ্ঠ কিছু লেখা লিখবো বলে ভাবছি। এক নিঃশ্বাসে যা পড়ে নেয়া যায়।

নয়ন মজুমদার: বাজে লোকদের সঙ্গ ত্যাগ করা উচিত। ভালো লোকের সাথে থেকে ভালো হওয়া যায় না, কিন্তু খারাপ লোকের সাথে থেকে খারাপ হওয়া যায়

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: হ্যাঁ, ভালো লোকদের সাথে থাকলে কিন্তু খানিকটা হলেও ভালো হওয়া যায়। ওই যে বলে, গোলাপের বাগানে ঝাড়ের নিচে যে মাটি, সেটাও কিছুটা সুগন্ধিযুক্ত হয়ে পড়ে! তবে ভালো হওয়াটা যতটা কঠিন, খারাপ হওয়াটা ততটাই সহজ। এটি হলো খারাপ লোকের সাথে মেলামেশার বড় বিপদ।

Salman Bin Ishaque: থামিয়ে দেওয়ার উপায়টা কি? ফোর্স করে?

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: ক্ষমতা থাকলে কিংবা সম্ভব হলে শক্তি প্রয়োগ করে বাজে লোকদেরকে থামিয়ে দিতে হবে। না হলে তারা ভুল চিন্তা এবং অপকর্ম দ্বারা ব্যাপক বিশৃঙ্খলা ও বিভ্রান্তি সৃষ্টি করবে।

পোস্টটির ফেসবুক লিংক

এ ধরনের আরো লেখা

সেলফ ব্র্যান্ডিং: মানবিক পরিচয়ের মূলসূত্র

আমরা মানুষ। যেভাবেই হোক না কেন, আমরা সৃষ্টির সেরা। আমাদের এই...

মন্তব্য

আপনার মন্তব্য লিখুন

প্লিজ, আপনার মন্তব্য লিখুন!
প্লিজ, এখানে আপনার নাম লিখুন

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক
মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকhttps://mozammelhq.com
নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলসফি পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। থাকি চবি ক্যাম্পাসে। নিশিদিন এক অনাবিল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি। তাই, স্বপ্নের ফেরি করে বেড়াই। বর্তমানে বেঁচে থাকা এক ভবিষ্যতের নাগরিক।

সম্প্রতি জনপ্রিয়

যুক্তিবুদ্ধির পক্ষে আল্লাহ তায়ালা

আল্লাহর রাসূল মুহাম্মদ (সা) বলেছেন, ‘আল্লাহ যাকে কল্যাণ দান...

মেয়েদের চাকরি করা বা না করার সুবিধা-অসুবিধা ও কর্মজীবী নারীদের সংসার জীবনের ভালোমন্দ

“কর্মজীবী মহিলা যারা সংসারে আর্থিক স্বচ্ছলতা আনার জন্য চাকরি...

ডিভোর্সি নারীদের সমস্যা

কোনো মেয়ের যখন ডিভোর্স হয় তখন সবাই ভাবে, দোষ...

প্রমাণের দায়িত্ব কিংবা প্রমাণের প্রামাণিকতা

  ১. কেন এই লেখা ২. প্রমাণ থাকা আর সত্য হওয়া...